আয়েশার ভাগ্যে জুটল না এক মুঠো চাল

 

সংবাদ জমিন, অনলাইন ডেস্ক ঃঃ

আয়েশার ভাগ্যে জুটল না এক মুঠো চাল। তাও ১ অক্টোবর বিশ্ব প্রবীণ দিবসে। প্রবীণদের সুরক্ষা ও অধিকার নিশ্চিত করতে বিশ্বব্যাপী গণসচেতনতার লক্ষ্যে ১৯৯১ সাল থেকে দিবসটি পালিত হচ্ছে। অথচ আমাদের দেশের জনপ্রতিধিদের রেষারেষির কারণে আজও অনেক প্রবীণ নারী-পুরুষকে থাকতে হচ্ছে সরকারের সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীর বাইরে। গত জুন মাসে ইউপি নির্বাচনের পর বিষয়টি প্রকট আকার ধারণ করেছে ঝালকাঠির রাজাপুরে। নব নির্বাচিত চেয়ারম্যান-মেম্বাররা তাদের পছন্দমতো লোকদের সুবিধা দেয়ার জন্য অনেক হতদরিদ্র মানুষের নাম কেটে দিচ্ছেন সরকারি সুবিধার তালিকা থেকে। এতে চরম দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে অনেক হতদরিদ্র প্রবীণ নারী-পুরুষকে। সত্তরোর্ধ্ব আয়শা বেগমের একসময় সবই ছিল। স্বামী-সন্তান, পরিবার-পরিজন সবকিছু।

অথচ জীবনের শেষ প্রান্তে এসে প্রবীণ এ নারী আজ পথের ভিখারি। এখন আর তার স্বজন বলতে কেউ নেই। মাথা গোঁজার জন্য নেই কোনো আশ্রয়স্থল। সারা জীবন নিজের সামর্থে দাপিয়ে বেড়ানো মানুষটাই আজ শারীরিক দুর্বলতার সঙ্গে সঙ্গে সমাজ-সংসারে বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হয়েছে। আয়শা বেগমের বাড়ি ঝালকাঠির রাজাপুর সদর উপজেলা সদরের আঙ্গারিয়া গ্রামে। বয়সের ভারে ন্যুব্জ আয়শা এখন সবকিছুতেই অক্ষম। কেউ নেই তার পাশে। অনাহারে, অর্ধাহারে কাটছে জীবন। চালের জন্য গিয়েছেন চাল আনতে. চাল আনতে পারেনি, ফিরেছেন রিক্ত হস্তে। প্রবীণ দিবসে মিললো না এক মুঠো চাল। আয়েশা জানান, যে যে জায়গায় গিয়েছি, কেউ কিছু দেয়নি। টিকার জন্য গিয়েছি, টিকা দেয়নি। গিয়েছি চাল আনতে বলে কিনা কার্ড দেহাও। মরণ ছাড়া আর আমার গতি নেই।