মাকে ভোগ করার পর এবার মেয়েকে ভোগ করতে চায় মানিকগঞ্জের যুবলীগ নেতা !

 

সংবাদ জমিন, অনলাইন ডেস্ক ঃঃ
স্বামী বিদেশ যাওয়ার পর থেকেই মোবাইল ফোনে সব সময় বিরক্ত করতো যুবলীগ নেতা আলী হোসেন উজ্জল। এভাবে আমার সরলতার সুযোগ নিয়ে একদিন ওর বাড়িতে ডেকে নেয়। তখন বাড়িতে উজ্জল ছাড়া অন্য কেউ ছিল না। ওর ঘরে নিয়ে আমার ইচ্ছের বিরুদ্ধে সে ধর্ষন করে। ঘরের ভেতর আগে থেকেই মোবাইল ফোনের ভিডিও সেট করা ছিল তা আমি জানতাম না। এরপর থেকে সেই ভিডিও আমার জীবনের কাল হয়ে দাড়ায়। তার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক না করলে আমার স্বামীর কাছে ভিডিও ফুটেজ পাঠিয়ে দেবে এবং ইন্টারনেটে তা ছড়িয়ে দেবে বলে ভয়ভীতি দেখায়। যার কারনে চারটি বছর ধরে আমাকে যখন যেভাবে খুশি সে ব্যবহার করে যাচ্ছিল। সে শুধু একাই আমার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক গড়ে তোলেনি, তার বন্ধুদের দিয়েও প্রতি নিয়ত আমার ওপর অমানুষিক নির্যাতন চালিয়েছে।

আমার ইজ্জত, মান সম্মান সব কিছু কেড়ে নেয়ার পর ওই পিচাশের কু দৃষ্টি পড়ে আমার স্কুল পড়ুয়া মেয়ের দিকে। তাই মেয়ের ইজ্জত বাঁচাতে বাধ্য হয়ে থানায় মামলা করতে হয়েছে। এমন লোমহর্ষক ঘটনাটি মানিকগঞ্জের ঘিওর উপজেলার নালী ইউনিয়নের হেলাচিয়া গ্রামে। ওই ইউনিয়নের প্রভাবশালী ইউপি সদস্য দরবেশ বেপারীর পুত্র ইউনিয়ন যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আলী হোসেন উজ্জল ব্ল্যাকমেইল করে প্রবাসীর স্ত্রীর শুধু দেহ ভোগ নয়,বিভিন্ন এনজিও থেকে তার নামের উপর ৮ লাখ ২৫ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়। এখন ঋণের সে দায়ভারও তার উপর এসে পড়েছে। লোলুপ পড়েছে তার স্কুল পড়ুয়া মেয়ের উপর।

থানা-পুলিশ জানায়, ভিকটিমকে পরীক্ষার জন্য হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। মামলায় উজ্জলের পাশাপাশি তার এ কাজে সহযোগিতার জন্য মনোয়ারা নামে এক মহিলাকে আসামী করা হয়েছে। তথ্য সূত্র–রিপন আনসারী, মানবজমিন (ঘটনাটি ২ বছর আগের)