মানিকগঞ্জের আন্ধারমানিক এলাকায় আশ্রয় নেয়া সেই ভন্ড বাবা চাঁদপুর থেকে গ্রেফতার

 

মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি ঃঃ
মানিকগঞ্জের আন্ধার মানিক এলাকায় আশ্রয় নেয়া সেই ভন্ড বাবাকে চাঁদপুরের নিজ এলাকা থেকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। উদ্ধার করেছে লুন্ঠিত মালামাল।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, চাঁদপুরের মতলব দক্ষিণের নারায়ণপুর গ্রামের বাচ্চু প্রধান (৭৩) ৬ সেপ্টেম্বর সাধুর বেশ ধরে আশ্রয় নেয় মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার আন্ধারমানিক এলাকার পঙ্কজ কুমার মন্ডলের বাড়িতে। আর আশ্রয় নিয়েই ফুঁ দিয়ে আগুন ধরানো, মাটির সাথে স্যাকারিন মিশিয়ে মিষ্টি খাইয়ে মানুষকে তাক লাগিয়ে দেয়। মানুষকে তাক লাগিয়ে মন জয় করার পর ঐ বাড়ির সবাইকে ঘুমের ঔষুধ খাইয়ে নগদ টাকা, মোবাইল ও স্বর্ণলংকার লুট করে নিয়ে যায়। খবর পেয়ে মানিকগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ও সদর সার্কেল ভাস্কর সাহা এবং সদর থানার ওসি আকবর আলী খান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

এদিকে পঙ্কজ কুমার মন্ডল সুস্থ্য হয়ে থানায় সাধারণ ডায়েরী করলে শনিবার (১৮ সেপ্টেম্বর) তাকে ধরতে মানিকগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক এসআই টুটুল উদ্দিন ও এসআই মনিরুজ্জামানের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল মতলব দক্ষিণ থানায় অভিযান চালায়। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে বাড়ির পাশের পুকুরে ঝাঁপিয়ে পালানোর চেষ্টা করে অভিযুক্ত সাধুবাবার বেশধরা প্রতারক বাচ্চু প্রধান (৭৩)। এসআই মনিরুজ্জামান পুকুরে ঝাঁপিয়ে পড়ে তাকে পানি থেকে পাকড়াও করেন।

এ বিষয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) ভাস্কর সাহা সংবাদ মাধ্যমকে জানান, এভাবে কোনো ব্যক্তির ভেল্কিবাজিতে পরে কিংবা সরল বিশ্বাসে প্রতারিত না হতে জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে সবাইকে সচেতন থাকতে বলা হয়েছে। কারণ মাত্রাতিরিক্ত ঘুমের ওষুধ খাওয়ার কারণে অনেক ক্ষেত্রে ভিকটিম মারা যাওয়ার নজিরও রয়েছে। ছবি-রিসাইজ