মানিকগঞ্জ ৬ দিনব্যাপী ১ম ব্যাচের ধারাবাহিক মূল্যায়ন বিষয়ক প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত

 

মো. আলতাফ হোসেন ঃঃ
শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের নির্দেশনায় সেসিপের অর্থায়নে মাধ্যমিক উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের আওতাধীন বাংলাদেশ পরীক্ষা উন্নয়ন ইউনিটের তত্ত্বাবধানে ধারাবাহিক মূল্যায়নের ওপর শিক্ষক প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। এ প্রশিক্ষণে মাঠ পর্যায়ে (বাংলা, ইংরেজি, গণিত, বিজ্ঞান এবং বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয়) বিষয়ে ১০০০ মাস্টার ট্রেইনার এবং পরবর্তীতে মাঠ পর্যায়ে ২৪০০০ শিক্ষককে প্রশিক্ষণ পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় শিক্ষকগণের ওপর অর্পিত এই গুরুদায়িত্ব সুষ্ঠুভাবে পালনে সহায়তা প্রদান এবং এ লক্ষ্যে দিক নির্দেশনা প্রদানের উদ্দেশ্যে ধারাবাহিক মূল্যায়ন বিষয়ক প্রশিক্ষণ কর্মশালা গত ২৩ অক্টোবর, ২০২১ শনিবার থেকে ২৮ অক্টোবর পর্যন্ত ৬ দিনব্যাপ এ কর্মশালা মানিকগঞ্জ খানবাহাদুর আওলাদ হোসেন খান উচ্চ বিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়। । ২০০ জন মাধ্যমিক পর্যায়ে পাঠদানকারী শিক্ষকবৃন্দ এ প্রশিক্ষণ কর্মশালায় অংশ গ্রহণ করেন।এর মধ্যে বাংলায় ৪০,ইংরেজি-৩৬, গণিত-৪০,বিজ্ঞান-৪১, বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয়-৪৩ জন। সার্বিক সহযোগিতায় জেলা শিক্ষা অফিস, মানিকগঞ্জ ।

প্রশিক্ষণ কর্মশালায় মানিকগঞ্জ জেলা শিক্ষা অফিসার রেবেকা জাহান প্রশিক্ষণার্থী শিক্ষকদের সাথে আলাপচারিতা করেন ও তাদের খোঁজ-খবর নেন এবং প্রশিক্ষণ বিষয়ক গুরুত্বপূর্ণ দিকনির্দেশনামূলক বক্তব্য প্রদান করেন। তিনি বলেন,শিক্ষকদের পেশাগত দক্ষতা বৃদ্ধিতে প্রশিক্ষণটি সহায়তা করবে এবং গুণগত পাঠদানের সহায়ক হবে। তিনি প্রত্যাশা করেন এই প্রশিক্ষণ কর্মসূচীর মাধ্যমে প্রশিক্ষণার্থীগণ দৃষ্টিভঙ্গির ইতিবাচক পরিবর্তনসহ দায়িত্ব পালনে প্রয়োজনীয় জ্ঞান ও দক্ষতা অর্জনে সমর্থ হবেন এবং এ কর্মসূচি বাস্তবায়নের মাধ্যমে দেশের শিক্ষা ব্যবস্থায় গুণগত পরিবর্তন আসবে যার মাধ্যমে আমাদের আগামীর শিক্ষার্থীবৃন্দ প্রকৃত জ্ঞান ও মূল্যবোধ সমৃদ্ধ সুনাগরিক হিসেবে গড়ে উঠবে।

জেলা ট্রেনিং কো-অর্ডিনেটর আকলিমা বেগম আঁখি বলেন,গুণগত মানসম্পন্ন শিক্ষার লক্ষ্য অর্জনের জন্য ‘ধারাবাহিক মূল্যায়ন’এর কোনো বিকল্প নেই। গোটা বছরব্যাপী চলমান ধারাবাহিক মূল্যায়ন ব্যবস্থার মাধ্যমে সকল শিক্ষার্থীর পরিপূর্ণ শিখন অর্জন সম্ভব হয়।প্রশিক্ষণের সার্বিক তত্ত্বাবধানে রয়েছেন রেবেকা জাহান জেলা শিক্ষা অফিসার, মানিকগঞ্জ, আকলিমা বেগম আঁখি ডিস্ট্রিক ট্রেনিং কো-অর্ডিনেটর,জেলা শিক্ষা অফিস, মানিকগঞ্জ।

এ প্রশিক্ষণ কর্মশালায় ১১ জন মাস্টার ট্রেইনার প্রশিক্ষণ প্রদানে নিয়োজিত রয়েছেন। প্রধান প্রশিক্ষক মো.কামরুল ইসলাম,উপজেলা একাডেমিক সুপারভাইজার,হররিামপুর। এ প্রশিক্ষণ কর্মশালায় মাস্টার ট্রেইনারগণ মধ্যে বাংলা বিষয়ক মো.আতাউর রহমান,প্রধান শিক্ষক (ভারপ্রাপ্ত) ষাইটঘর তেওতা উচ্চ বিদ্যালয়। হোসনেয়ারা আক্তার,সহকারী প্রধান শিক্ষক,উপজেলা কেন্দ্রীয় আ.গনি সরকার উচ্চ বিদ্যালয়।গনিতে মো.বজলুর রহমান,প্রধান শিক্ষক হরগজ শহিদ স্মৃতি উচ্চ বিদ্যালয়,সাটুরিয়া,আসাউদ জামান,উপজেলা একাডেমিক সুপারভাইজার,উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস সাটুরিয়া। বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয় রাশেদুল ইসলাম, উপজেলা একাডেমিক সুপারভাইজার, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস, শিবালয়,মো.শাহজাহান,সহকারী শিক্ষক,নবগ্রাম ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়।বিজ্ঞানে মো.রাশেদ আল মাহমুদ, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস শিবালয়,মো.আ.লতিফ প্রধান শিক্ষক(ভারপ্রাপ্ত)চারিগ্রাম এস,এ খান উচ্চ বিদ্যালয়। মো.গোলাম মোস্তফা, সহকারী শিক্ষক ঝিটকা আনন্দমোহন উচ্চ বিদ্যালয়, হরিরামপুর।ইংরেজি মো.শাখাওয়াত হোসেন মৃধা,প্রধান শিক্ষক দক্ষিণ চাঁদপুর উচ্চ বিদ্যালয়,হরিরামপুর,মো.রমজান আলী,প্রধান শিক্ষক চক মিরপুর উচ্চ বিদ্যালয়।

পেশার উন্নয়নে জ্ঞানদক্ষতার প্রয়োজন।শিক্ষাদান করাও একটি মহান পেশা।একজন শিক্ষককে তার পেশার উন্নয়নের স্বার্থে প্রতিনিয়ত নব নব জ্ঞান ও কৌশলের সন্ধান করতে হয়। পাঠদানকে শতভাগ সফল করতে নতুন নতুন প্রযুক্তি ও আধুনিক জ্ঞান গবেষণার সন্ধানে নিরলস প্রচেষ্টায় নিজেকে নিরত রাখতে হয়। শিক্ষকের পেশাগত মূল্যবোধ, আত্মপ্রত্যয় ও বোধগম্যতার সমন্বয় ঘটিয়ে শ্রেণি পাঠদান সার্থক করতে হয়। আর এসব পদ্ধতি ও কৌশলকে আয়ত্ব করতে হলে শিক্ষকের জ্ঞানদক্ষতার উন্নয়ন করতে হয় এবং যথাসময়ে যথোপযুক্ত পাত্রে প্রায়োগিক দিকেও নজর দিতে হয়। তাই একজন শিক্ষকের জ্ঞানদক্ষতার উন্নয়ন সাধনের জন্য যেসব বিষয়ে প্রাধিকার ভিত্তিতে নজর দিতে হবে তা হচ্ছে-পেশাগত মনোভাব,আত্ম-মূল্যায়ন,পেশাগত জ্ঞানার্জন,ব্যক্তিগত দর্শন, ব্যক্তিগত মূল্যবোধ,পেশাগত দায়িত্ববোধ,সেবার মনোবৃত্তি, পেশাগত প্রশিক্ষণ।

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার মাধ্যমিক শিক্ষাস্তরের শিক্ষার মানসম্মত মানোন্নয়নে যথেষ্ট গুরুত্ব দিচ্ছে এবং লক্ষ্যে বেশ কিছু প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। প্রকৃতপক্ষে ধারাবাহিক মূল্যায়ন ব্যবস্থা বাস্তবায়নের মধ্যেই মাধ্যমিক শিক্ষার গুণগত মান নিহিত রয়েছে। তবে ধারাবাহিক মূল্যায়ন ব্যবস্থা প্রবর্তনের প্রয়োজনীয়তা এবং কার্যকরভাবে শ্রেণিকক্ষে বাস্তবায়নের জন্য শিক্ষকগণের নিবিড় প্রশিক্ষণ একান্ত আবশ্যক।

“শিক্ষক শিক্ষার সংস্কারের মূল ব্যক্তিত্ব।শিক্ষকদের পেশাগত দক্ষতার সাথে শিক্ষার কার্যকারিতা উন্নয়ন ওতপ্রোতভাবে জড়িত। শিক্ষকদের মানোন্নয়নে প্রশিক্ষণের বিকল্প নেই এবং ছাত্র-শিক্ষক বন্ধুত্বপূর্ণ সুসম্পর্কের জন্য যোগাযোগ দক্ষতা বাড়াতে হবে। শিক্ষা ক্ষেত্রে শিক্ষকের ভূমিকা অপরিহার্য। একজন উন্নত পেশাগত দৃষ্টিভঙ্গির আদর্শ শিক্ষক নিজের দক্ষতা দিয়ে শিক্ষার্থীর সর্বাঙ্গীন বিষয়ে সাহায্য করতে পারেন। শিক্ষকদের উপর অর্পিত দায়িত্ব ও কর্তব্য নিষ্ঠার সাথে পালন করলে শিক্ষার্থীদের যোগ্য নাগরিক হিসেবে গড়ে তোলা যায়। আর যোগ্য নাগরিকই হলো একটি দেশের উন্নয়নের মূল ভিত্তি। জাতীয় শিক্ষানীতিতে শিক্ষকদের মর্যাদা, অধিকার ও দায়িত্ব অধ্যায়ে বলা হয়েছে,প্রাথমিক স্তর থেকে সর্বোচ্চ স্তর পর্যন্ত সর্বত্র শিক্ষকদের যথাযথ মর্যাদার বিষয়টি গুরুত্বপূর্ণ। মেধাবী শিক্ষার্থীদের শিক্ষকতায় আগ্রহী এবং সঠিকভাবে দায়িত্ব পালনে উদ্বুদ্ধ করার লক্ষ্যে সব স্তরের শিক্ষকদের মর্যাদার বিষয়ে গভীরভাবে বিবেচনা পূর্বক পুনর্বিন্যাস করা হবে যাতে তারা যথাযথ মর্যাদা ও সুযোগ-সুবিধা পেতে পারেন। শিক্ষানীতিতে শিক্ষকদের মর্যাদা ও অধিকার প্রতিষ্ঠার কৌশল বিষয়ে বলা হয়েছে,সামাজিক বাস্তবতা সামনে রেখে সব স্তরের ও ধারার শিক্ষকদের মর্যাদা ও সুযোগ-সুবিধা এবং দায়দায়িত্বের বিষয়ে গভীরভাবে বিবেচনা করে তা পুনর্বিন্যাসের লক্ষ্যে বাস্তব পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।

একটি নির্দিষ্ট সংস্থায় সফল হওয়ার জন্য,একজন কর্মীর বিভিন্ন দক্ষতার মডেল রযেছে। পেশাদার দক্ষতার বিকাশের জন্য পদ্ধতিগুলির একটি নিয়মতান্ত্রিক মূল্যায়ন প্রধান সূচকগুলি বিবেচনায় নিয়েই পরিচালিত হয়। সমস্ত কর্মক্ষম কর্মীদের জন্য কর্পোরেট দক্ষতার প্রয়োজন। সুনির্দিষ্ট দক্ষতাগুলি একটি উচ্চতর বিশেষায়িত ফাংশনের কার্য সম্পাদনের উপর ভিত্তি করে। গুণগত শিক্ষার জন্য বাংলাদেশ পরীক্ষা উন্নয়ন ইউনিটের তত্ত্বাবধানে ধারাবাহিক মূল্যায়নের ওপর শিক্ষক প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে যা শিক্ষকদের পেশাগত দক্ষতা বৃদ্ধিতে প্রশিক্ষণটি সহায়তা করবে এবং জ্ঞানগত পাঠদানের সহায়ক হবে।এ ধারাবাহিক মূল্যায়ন বিষয়ক প্রশিক্ষণ কর্মশালা ৩৯টি জেলায় চলমান রয়েছে।
লেখকঃ গবেষক, সাবেক জাতীয় ক্রীড়াবিদ,
সভাপতি শারীরিক শিক্ষাবিদ সমিতি, সাংবাদিক ও কলামিস্ট