সনাতন ধর্মাবলম্বীদের উপর হামলা করা ইসলামের আদর্শ হতে পারে না

 

স্টাফ রিপোর্টার ঃঃ
বাংলাদেশ সুপ্রিম পার্টির চেয়ারম্যান শাহ্সূফী মাওলানা সাইয়্যিদ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী বলেছেন, সম্প্রতি একটি ইসলামি দলের উগ্র অনুসারীরা সনাতন ধর্মের লোকজনের ওপর যে নৃশংস হামলা চালিয়েছে তা অত্যন্ত নিন্দনীয় ও ইসলামের দৃষ্টিতে গর্হিত অপরাধ। উগ্রপন্থীরা কখনো প্রিয় নবীজীর (দ.) অনুসারী হতে পারে না। কারণ আমাদের প্রিয় নবীজী ছিলেন উদার ও সব মানুষের প্রতি দয়াশীল। অন্য ধর্মের অনুসারীদেরকে আঘাত করে সম্প্রীতি বিনষ্ট করা কখনো মুসলমানদের বৈশিষ্ট্য হতে পারে না। ধর্মীয় সম্প্রীতি ও সহাবস্থানের প্রতি হুমকি হিসেবে চিহ্নিত দুর্বৃত্তদের আইনের আওতায় এনে কঠোর শাস্তি দেয়ার দাবি জানান তিনি।

২০ মার্চ, মুন্সিগঞ্জ কেওয়ার নুরাইতলী আনজুমান এ রহমানীয়া মইনীয়া মাইজভাণ্ডারীয়া আয়োজিত সুন্নী সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সাইয়্যিদ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী এসব কথা বলেন। তিনি আরো বলেন, তায়েফের মাটিতে যারা প্রিয় নবীজীর (দ.) ওপর অত্যাচার করেছিল, পাথর নিক্ষেপ করে রক্তাক্ত করেছিল, কিন্তু আল্লাহ্র রসূল তাদের ধ্বংস করার জন্যে অভিসম্পাত না করে তাদের হেদায়েতের জন্য মহান আল্লাহর কাছে দোয়া করেছিলেন এবং দোয়ার বরকতে তায়েফের জমিন উর্বর হয়েছে। মহান আল্লাহ্ তাদের হেদায়েত দান করে অফুরন্ত নেয়ামত দান করেছিলেন।

বিনা রক্তপাতে মক্কা বিজয়ের মাধ্যমে তিনি ক্ষমাশীলতার যে অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন, তা সমগ্র বিশ্বের কাছে ইসলামের শান্তি ও মানবতার দর্শনকে তুলে ধরেছে। ‘মদীনা সনদ’র আলোকে তিনি অমুসলিমদের অধিকার ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করেছেন। সর্বজনীন কল্যাণমূলক মদিনা রাষ্ট্রের গোড়াপত্তন করে সব সম্প্রদায়ের মানুষের সহাবস্থানের নজির স্থাপন করেছেন প্রিয়নবী (দ.)। সাইয়্যিদ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী বলেন, যুগে যুগে অগণিত আউলিয়ায়ে কেরাম প্রিয় নবীজী (দ.) এর সেই সুমহান আদর্শকে ধারণ করে এদেশের মাটিতে সম্প্রীতির বীজ বপন করেছেন। তাই আজও ধর্মীয় সম্প্রীতিতে বাংলাদেশ বিশ্বের রোল মডেল। আউলিয়ায়ে কেরামের দরবার, জাতি-ধর্ম নির্বিশেষে সকলের আশ্রয়স্থলে পরিণত হয়েছে। অথচ একদল উগ্রপন্থী অন্য ধর্মের অনুসারীদেরকে আঘাত করে, ইসলামকে কলুষিত করছে, এদেশের হাজারো বছরের গৌরবকে ভূলুণ্ঠিত করছে। ফলে ইসলামের প্রকৃত আদর্শ সম্পর্কে ভুল বার্তা পাচ্ছে অমুসলিমরা।

নিঃসন্দেহে এ হীন কর্মকাণ্ড, ইসলামের বিরুদ্ধে বৃহৎ ষড়যন্ত্রের একটি অংশ। ফেসবুকে যে ব্যক্তি কটুক্তি করেছে তাকে পুলিশ আটক করেছে তারপরও সনাতন ধর্মের অন্যদের বসতভিটা ভাংচুর লুটপাট করা অমানবিক। তিনি সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তা নিশ্চিতের জন্য সরকারের প্রতি আহবান জানান। সম্মেলনে আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন, মওলানা রুহুল আমিন ভুইয়া চাঁদপুরী, মুফতী খাজা বাকী বিল্লাহ আল-আযহারী, হাফেজ মাওলানা মুফতী মাকসুদুর রহমান, হাফেজ মওলানা মনসুর আলি মাইজভাণ্ডারী, স্থানীয় খলিফাবৃন্দ, আন্জুমানে রহমানিয়া মইনীয়া মাইজভাণ্ডারীয়া ও মইনীয়া যুব ফোরামের নেতৃবৃন্দ। প্রিয় নবীজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামার প্রতি দরূদ ও সালাম পেশ শেষে বিশ্বমানবতার কল্যাণ কামনায় মুনাজাত পরিচালনা করেন শাহ্সূফী সাইয়্যিদ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী। হাজারো আশেকানবৃন্দ মুনাজাতে অংশগ্রহণ করেন।