সাভারে বিরুলিয়ার খুনি সেলিম মন্ডল মনোনয়ন পেতে এমপি-মন্ত্রীর দ্বারে দ্বারে

 

নিজস্ব প্রতিনিধি ঃঃ
সাভারের থানা যুবলীগের সাবেক সভাপতি সেলিম মন্ডলের বিরুদ্ধে নিজের স্ত্রীকে পুড়িয়ে মারার অভিযোগ ওঠায় দল থেকে বহিষ্কার হন। সেই বহিঃষ্কৃত যুবলীগ নেতা আসন্ন ইউপি নির্বাচনে সাভারের বিরুলিয়া ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে নৌকা প্রতীকে মনোনীত হওয়ার জন্য দিন গুনছেন।

সেলিম মন্ডল পরিবারের অমতে ২য় বিয়ে করায় অশান্তি ছিল আগে থেকেই। ২০১৮ সালে হত্যাকান্ডের প্রায় দেড় মাস আগে এক পারিবারিক অনুষ্ঠানে ২য় স্ত্রী আয়েশা আক্তারকে প্রাণনাশের হুমকি দেয় সেলিম মন্ডল। তারপর মানিকগঞ্জের সিঙ্গাইর এলাকার বায়রা ইউনিয়নের স্বরুপপুর গ্রামের একটি কলাবাগান থেকে আয়েশা বেগমের ঝলসানো লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এরপর থেকে গা ঢাকা দেয় সেলিম মন্ডল। বিদেশে পালানোর চেষ্টা করলে ইমিগ্রেশন পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে। এ মামলায় আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন সেলিম মন্ডল।

২০২০ সালে সিটি ইউনিভার্সিটির ৩ শিক্ষার্থীকে মারধর করেন সেলিম মন্ডল ও তার সহযোগীরা। এ ব্যাপারে সাভার মডেল থানায় অভিযোগও হয়েছিল। চাঁদাবাজির প্রতিবাদ করায় শিক্ষার্থীদের রামদা ও রড দিয়ে হামলা চালায় সেলিম মন্ডল বাহিনী। ২০১৭ সালে মার্চ মাসে গার্মেন্টস এর ঝুট ব্যবসা দখল করতে গিয়ে সেলিম মন্ডলের মদদে হামলার ঘটনা ঘটে। যুবলীগের দু গ্রুপের এ সংঘর্ষে গুরুতর আহত হওয়ার মত ঘটনাও ঘটে।

২০১৬ সালের ১২ আগস্ট আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সাভারে আওয়ামী লীগ দলীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগের সমর্থকদের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ, ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও গুলি বিনিময়ের ঘটনা ঘটে। বিরুলিয়া ইউনিয়নের সাদুল্যাপুরে একটি জমিতে বালু ফেলাকে কেন্দ্র করে বিরুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাইদুর রহমান সুজন ও উপজেলা যুবলীগের সভাপতি সেলিম মন্ডলের মধ্যে দীর্ঘ দিন ধরে বিরোধ চলে আসছিলো। এর জের ধরে ঐদিন দুপুরে সাদুল্যাপুরে ওই জমিতে বালু ফেলতে যান সেলিম মন্ডলের লোকজন। পরে ইউপি চেয়ারম্যান সুজনের সমর্থকরা সেলিম মন্ডলের বাড়ির সামনে দিয়ে ওই জমিতে যাওয়ার পথে সেলিম মন্ডলের লোকজন অতর্কিত হামলা করে সুজনের সমর্থকদের উপর। এ সময় উভয় গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষে ইউপি চেয়ারম্যান এর সমর্থক ফরিদুল ইসলাম (৩০) গুলিবিদ্ধ হয়। আহত হয় অন্তত ১০ জন।

সেলিম মন্ডলের আপন দুই ভাইয়ের বিরুদ্ধে আছে গণধর্ষণের অভিযোগ। এছাড়া অস্ত্র মামলাতেও গ্রেফতার হয়েছিলেন তিনি। আসন্ন ইউপি নির্বাচনকে সামনে রেখে আবারও সেলিম মন্ডল হয়েছে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী। ঘুরে বেরাচ্ছে এমপি,মন্ত্রী’র সামনে-পিছনে। সম্প্রতি কয়েকজন এমপি,মন্ত্রী’র সাথে ছবি তুলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফেইসবুকে পোস্ট দিয়ে বলে বেড়াচ্ছে মন্ত্রী নাকি খুনি সেলিম মন্ডল কে ইউপি নির্বাচনের মনোনয়ন কনফার্ম করে দিয়েছে। তার লোকজন এমন গুজব ছড়াচ্ছে বিরুলিয়া ইউনিয়নের জন সাধারণের মাঝে।

এদিকে বিরুলিয়া বাসী অবাক কন্ঠে বলাবলি শুরু করেছে। এমপি মন্ত্রীরা কি আমাদের শান্তি চায় না?নাকি আমাদের চাঁদাবাজ,ভুমিদস্যু, খুনির কাছে জিম্মি করে সব কেড়ে নিবে। দেশ রত্ন জননেত্রী শেখ হাসিনার কাছে আমাগো সমস্যার কথা কিবায় কমু,ফোন নাম্বার থাকলে কল দিয়ে বলতাম এমন মন্তব্য করেছেন বিরুলিয়ার জনগণ। এছাড়া সেলিম মন্ডল এর বিরুদ্ধে রয়েছে ডজনখানেক মামলা হামলার অভিযোগ। ভয় দেখিয়ে চলে তার তার সন্ত্রাসী রাজত্ব। বেতন ভুক্ত সন্ত্রাসী ও আছে সেলিম মন্ডল এর। সেই বাহিনীর নাম দিয়েছে(S)।

এসব ব্যাপারে সেলিম মন্ডলের সাথে মুঠো ফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করলে তাকে পাওয়া যায়নি। সূত্র-ফেসবুক